প্যানেলভুক্ত শিক্ষকদের চূড়ান্ত বিজয়

সদ্য জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্যানেলভুক্ত শিক্ষক নিয়োগের আপিল বিভাগের রায়ের বিরুদ্ধে করা রিভিউ আবেদন খারিজ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ফলে প্যানেলভুক্ত শিক্ষকদের চূড়ান্ত বিজয় হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) এ আদেশ দেন।

এতে প্রায় ২৮ হাজার প্যানেল শিক্ষক উপকৃত হবেন বলে দাবী করছেন প্যানেল শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

প্যানেল শিক্ষক রবিউল ইসলাম জানান, ২০১৩ সালে রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণ করা হলে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় বন্ধ হয়ে যায় প্যানেলের নিয়োগ। অবশিষ্ট প্যানেল শিক্ষকগণ গত তিন বছর ধরে নিয়োগের অপেক্ষায় আদালতে লড়াই করে আসছিলেন।

নওগার শফিকুল ইসলাম ও কয়েকজন প্যানেল শিক্ষক মিলে ২০১২ সালে হাইকোর্ট বিভাগে রিট পিটিশন দাখিল করে । সরকার এই মামলার আপিল করে। প্রধান বিচারপতির সমন্বয়ে তিন সদস্যের বেঞ্চ মামলাটি ২০১৪ সালে খারিজ করেন। ২০১৫ সালে সরকার এই খারিজের বিরুদ্ধে রিভিউ পিটিশন দাখিল করেন।

আজ বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) প্রধান বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত রিভিউ বেঞ্চে মামলাটির শুনানি শেষে রায়ে প্যানেলের বিজয় নিশ্চিত হয় । এতে প্রায় ২৮ হাজার প্যানেল শিক্ষক উপকৃত হবেন।

শিক্ষকদের পক্ষে ব্যারিস্টার রফিকুল হক, এডভোকেট বাসেত মজুমদার ও এডভোকেট সিদ্দীক উল্লাহ মিয়া মামলা পরিচালনা করেন।

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে হাইকোর্ট বিভাগ থেকে আরও প্রায় ৬০০ রিটের নিষ্পত্তি হয়েছে। যার প্রত্যেকটি প্যানেল শিক্ষকদের পক্ষে রায় পেয়েছেন।

বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ২০১০ সালে তৎকালীন সরকার সারাদেশে রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩০ হাজার যোগ্য শিক্ষক নিয়োগের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

ভুক্তভোগী শিক্ষকদের মধ্যে খোরশেদ আলম, রুজেল সাজু, প্রবীন বিশ্বাস, নাজনিন আক্তারসহ অন্যান্যরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন

হোম পরীক্ষা চাকুরী উচ্চশিক্ষা